বৈশাখের কবিতা : স্বপন রায়

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

স্রোতোস্বঃলা

নদী

জল আমার চোখও আমার
জলপাই এমন রং
দেখলেই দেশ চিন চিন করবে
সেই প্রথম যেবার গল্পটা ভারী হয়ে গেল
কী বৃষ্টি
আকাশহানা
সেদিন থেকে আজ অবধি কাঁটাতারের নিরালা বুলেটে
রাগ সেরেব্রাম
ও রাগিনী,আমার তো হাঁসের বেওসা ছিলনা, ছিল এক দিব্য এনফিল্ড
গিডি গিডি গিডি গিডি

নদী থাকলেই এটা টাটা ওটা
কেমন জলোমতী
আমি এক প্রবেশ্য
তুমি অবশ্য ইথারঞ্জিত স্কুটিতে

এইতো মুভির কারসাজি ঢোকার জন্য একটাই হৃদয়
টাটা টু মাঠাবুরু ইথারে আমার পটানোঘাঁটানো তরঙ্গগুলি
শব্দ হয়
লি লি
বাঙালিই এই রোগা টোকামারা খাল কেটে নিয়ে আসে
কেল্লা ভাসে

তিতুমীর কী আর করবে একঝাঁক কুমীর এলে,কোথায় রাখবে
চোখহারা জল
জলকাড়া চোখ

আর তুমি এই অর্থব্যবস্থার বাইরেই কীভাবে যেন চালাচ্ছ
স্কুটি
আমি এনফিল্ড
যেন কোথাও কোনও ছাদাকাশ নেই
বুলবুলি নেই যে তারে বসবে
শিস দেবে
তুমিও সানগ্লাস নামিয়ে
বলবে

শিস আর বলার
গাধোয়া রঙ
আজ আবার ট্রেন পেরোবার শব্দে কেঁপে গেল


জল
….

নদী
মস্তদিল
মাইল মাইল অববাহিকায়

জানলেই
পাখির দামে আকাশ বিলি শুরু
আমার চক্ষে চোখকে
চোখের খেলায় কী এক অস্ত্রে পড়ে শান
মণি
রিংটোনে ঢুকে যায়
নদী বুকের একপেশে গুল্ম
আমি ঘড়িতে লাগাই
শব্দঘাস

মোহ বানায় চোখে
বানায় নৌকোবাসার গান
কলকলোচ্ছলতান
গঙ্গা আমার মা
তো,তিস্তাও আমার মা

ঘাট দেখা যায় আমি তো আঘাটার ছেলে
মায়ের পা ভেবেছি
জলকেই
স্রোতগুলো ক্ষয়ে যাওয়া আঙুল
ওঠে
নামে
মা চলে যাচ্ছে তাই এই জল
কী খেলা যে এই নালিখিত কাশাকাশের

ছুঁলাম
ডুবে গেলাম

মন্তব্য, এখানে...
Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email
স্বপন রায়

স্বপন রায়

জন্ম, জামশেদপুর (টাটানগর), ঝাড়খণ্ড। স্কুল- ইস্পাতনগরী রাউরকেলা, ওড়িশা।কলেজ জীবন-খড়গপুর। (পঃ বাংলা)। পত্রিকা সংপৃক্তি: দ্রিদিম, কবিতা ক্যাম্পাস, নতুন কবিতা। শখ: লেখালিখি। ঘোরাঘুরি। কয়েকটি স্বলিখিত বইও আছে।