Author: আমান উল্লাহ্

কিশোরগঞ্জ জেলায় ১৯৬২ সালে জন্ম । চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা অনুষদে পড়াশোনা শেষে শিক্ষকতা করেছেন রাজশাহী আর্ট স্কুলে। বর্তমানে শান্ত-মারিয়ম বিশ্ববিদ্যারয়ে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে ফাইন আর্টস বিভাগে শিক্ষকতা করছেন। যুক্ত রয়েছেন বিভিন্ন লিটলম্যাগ কার্যক্রমের সাথে।

দেশ স্বাধীনের পরও সাধনের দিদিমা অনেকদিন বেঁচে ছিলেন। ধুন্দি বলে দূর থেকে ঠিসি কাটলেও কাছে এসে জিজ্ঞেস করতাম- দিদিমা অরুণ কোথায়? অরুণ বাইরে গেছে। অরুণকে ধুলদিয়ার পুলে নিয়ে যাওয়ার পর ফিরে আসেনি। ওখান থেকে কেউ ফেরেনি। সাধন ফিরেছে। সাধনের দাদুও ফেরেনি। সাধনের ফিরে আসাটা অবাস্তব গপ্পো। আমরা জিজ্ঞেস করলে এড়িয়ে যেতো, কোনদিন গল্পচ্ছলেও বলেনি সেদিন কী ঘটেছিল। সেদিন যা ঘটেছিল গোইয়ার পেইন্টিং মতে, হাত বাঁধা যুবকদের সারি করা লাইনে সারিবদ্ধ জওয়ানেরা গুলি করছে। কেউ মৃত্যু ভয়ে নীল, কেউ মৃত্যুকে তুড়ি মেরে বুক চিতিয়ে গুলিকে আলিঙ্গন করছে। এই হতে পারে ধুলদিয়ার ফায়ারিং স্কোয়াড। সাধনের দিদিমা সিঁদূর পরতেন। জিজ্ঞেস করলে বলতেন- ওরা…

পড়ুন